Diet - ডায়েট

পেপে- কাঁচা না পাকা !

Papaya

পেঁপে কাঁচাই হোক বা পাকা দুই’ই খুব উপকারী, তবে সবার কাছে এটি সমান প্রিয় নয়। কেউ কাঁচা পেঁপের সবজি পছন্দ করেন, কারও বা আবার প্রিয় ফল পাকা পেঁপে । আবার বেশিরভাগ অল্পবয়েসিদের পেঁপে একেবারেই না-পসন্দ। তবে কাঁচা বা পাকা পেঁপের যে কত গুণ তা বলে শেষ করা যাবে না। গুণাবলির জন্যই একে অমৃতফল বলা হয়।

পেঁপের আবার ঔষধিগুণও আছে। পেঁপে থেকে তৈরি হয় পেপসিন, যা থেকে হয় জন্ডিসের ওষুধ। আর আয়ুর্বেদের মতে এর অবিস্মরণীয় গুণাগুণ অন্য যে কোনো সব্জি বা ফলকে হার মানায়।

আসুন প্রথমে জেনে নিই ১০০ গ্রাম কাঁচা পেঁপেতে কি কি আছে

শক্তি – ৩০ (কিলো ক্যালরি),

প্রোটিন – ০.৫ গ্রাম,

ফ্যাট – ০.৩ গ্রাম,

কাবোহাইড্রেট – ৬ গ্রাম,

ক্যালসিয়াম – ৩০ মিগ্রা,

লোহা – ১ মিগ্রা,

ভিটামিন বি১ – ০.১ মিগ্রা, ভিটামিন বি২ – ০.০১ মিগ্রা, ভিটামিন বি৩ – ০.১ মিগ্রা, ভিটামিন সি – ১২ মিগ্রা,

ফসফরাস – ৪০ মিগ্রা,

ফাইবার – ০.৯ গ্রাম,

পটাসিয়াম – ২১৬ মিগ্রা,

সোডিয়াম – ২৩ মিগ্রা।

কাঁচা পেঁপের উপকারিতা

পেঁপের আঠা কৃমিনাশক;

কাঁচা পেঁপের তরকারি মাতৃদুগ্ধ বৃদ্ধিকারক;

পেঁপের কষের প্রলেপ দাদ সারায়;

ব্রণর উপর কাঁচা পেঁপের রস ভাল উপকার দেয়;

ডায়েরিয়াতে কাঁচা পেঁপে সেদ্ধ করে খেলে ভাল উপকার হয়;

ফোলা জায়গায় কাঁচা পেঁপের রস লাগালে উপকার পাওয়া যায়;

যাঁরা ডায়াবেটিক, তারা আলুর বদলে কাঁচা পেঁপেকে অবশ্যই সঙ্গী করতে পারেন;

শরীরের অতিরিক্ত ফ্যাট ঝরিয়ে শরীরকে নির্মেদ রাখার জন্য ছোটবেলা থেকেই কাঁচা পেঁপে খাওয়ার অভ্যাস করা ভাল;

কনস্টিপেশনে যাঁরা নিয়মিত ভোগেন তাঁরা কাঁচা পেঁপের তরকারি খেলে উপকার পাবেন।

কাঁচা পেঁপের উপকারিতা তো জানলেন।

এবার আসুন জেনে নিই ১০০ গ্রাম পাকা পেঁপেতে কি কি থাকে-

শক্তি ৩০ কিলো ক্যালরি,

প্রোটিন ০.৫ গ্রাম,

ফ্যাট  ০.১ গ্রাম,

কার্বোহাইড্রেট ৭ গ্রাম,

ক্যালসিয়াম  ১৭ মিগ্রা,

লোহা ০.৫ মিগ্রা,

বিটা ক্যারোটিন  ১১০০ ইউনিট,

ভিটামিন বি১- .০৪ মিগ্রা, ভিটামিন বি২- ২ মিগ্রা, ভিটামিন বি৩- ০.২ মিগ্রা, ভিটামিন সি- ৬০ মিগ্রা,

ফাইবার – ০.৮ গ্রাম,

ক্যালসিয়াম – ১৭ মিগ্রা,

ফসফরাস – ১৩ মিগ্রা,

সোডিয়াম – ৬ মিগ্রা,

পটাসিয়াম – ৬৯ মিগ্রা।

পাকা পেঁপের উপকারিতা

সকালের জলখাবার-এর আধঘন্টা আগে যদি পাকা পেঁপে নিয়মিত খাওয়া যায় তাহলে উচ্চ রক্তচাপ কমে;

গলস্টোন প্রতিরোধকারী;

চামড়ার রুক্ষতা কমিয়ে ত্বক মসৃণ করে;

শরীরের ট্রাইগ্লিসারাইডের পরিমাণ নিয়ন্ত্রণ করে হৃদযন্ত্রকে সুস্থ রাখে;

রক্তে কোলেস্টরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে;

কোষ্ঠকাঠিন্য সারায়;

হজম শক্তি বাড়ায়;

কোলাইটিসে পাকা পেঁপে খুব উপকারী;

হিমোগ্লোবিন বাড়ায়;

এত উপকারিতা সত্ত্বেও এর কিছু অপকারিতাও আছে

অনেকের ল্যাটেক্স বা সাদা তরল পদার্থটি সহ্য নাও হতে পারে। তবে পেঁপের রস ক্ষতিকারক নয়।

যাঁরা ডায়াবেটিক তাঁরা খুব বেশি মিষ্টি পাকা পেঁপে অ্যাভয়েড করবেন। ব্লাড সুগার বাড়তে পারে;

অতিরিক্ত পরিমাণে পেঁপে খেলে অরুচি আসতে পারে;

গর্ভাবস্থায় পেঁপে খেলে গর্ভপাতের সম্ভাবনা থাকে;

গাঁটে ব্যথা হতে পারে;

চুলকানি বা পেটের ব্যথার সম্ভাবনা থাকে।

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Most Popular

To Top