Lifestyle - লাইফস্টাইল

রান্না করতে গিয়ে পুড়ে গেলে কি করবেন ?

burnt

কখনও রান্না করতে গিয়ে, কখনও বা ভাতের ফ্যান গলানোর সময় হাতে ফ্যান পড়ে গিয়ে আবার কখনও কারেন্ট অফ হয়ে গেলে মোমবাতি জ্বালাতে গিয়ে। নানাভাবে ছোট, বড় দুর্ঘটনা ঘটে চলে।

সেটা কখনও বাড়ির সামান্য চিকিৎসাতেই নিরাময় সম্ভব হয়, আবার কখনও হাসপাতালে ভর্তি হয়ে রীতিমতো কাঠখড় পুড়িয়ে সুস্থ হতে হয়, তবে বেশিরভাগ পোড়ার ক্ষেত্রে কিন্তু সঠিক সময়েই বাড়িতেই কিছু সঠিক ব্যবস্থা নিলেই রোগীকে বেশি কষ্ট পেতে হয় না। তবে সেক্ষেত্রেও বাড়িতে কিছু প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে হয়।

কি করা উচিত

প্রথমেই আগুন নেভাতে গেলে কম্বল জাতীয় মোটা বস্তু দ্বারা চেপে ধরে আগুন নেভানো উচিত;

পোড়া জায়গায় সঙ্গে সঙ্গে কেরোসিন তেল লাগালে জ্বালা কমে এবং ফোস্কা পড়ে না;

পুইপাতার রস দিলে তাড়াতাড়ি ঘা শুকিয়ে যায়;

পোড়া জায়গায় সঙ্গে সঙ্গে আলু থেঁতো করে লাগালেও জ্বালা-যন্ত্রণা কমে;

এছাড়াও টুথপেস্ট যদি পোড়া জায়গায় লাগানো হয়, সেক্ষেত্রেও জ্বালা-যন্ত্রণা কমে এবং ফোস্কা সাধারণত কম পড়ে;

পুড়ে যাওয়ার সাথে সাথে ফ্রিজের ঠান্ডা জল ঢাললে এবং বরফ ঘসলে কিছুটা আরাম পাওয়া যায়;

আগুনে পোড়া রোগীকে ঘি খাওয়ানো উচিত;

পোড়া স্থানে মাখন লাগানো কলাপাতা জড়িয়ে রাখলে তাড়াতাড়ি ঘা শুকিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে;

পুরানো তেতুল ভালো করে জলে গুলে, সেই জল পোড়া স্থানে লাগালে ফোস্কা পড়ে না ও ঘা হয় না;

পোড়া ঘা যদি সারতে সময় নেয়, তাহলে অশ্ব্থ গাছের ছাল পুড়িয়ে গুড়ো করে ঘা-এর উপর পাউডারের মতো ব্যবহার করা যেতে পারে;

রোগীকে সাধারণত প্রোটিনসমৃদ্ধ খাদ্য খাওয়ানো উচিত;

পাঁঠার চর্বি গলিয়ে যে তেল নির্গত হয়, সেই তেল পোড়া জায়গায় লাগানো যেতে পারে।

কি করা উচিত নয়

প্রথমেই যেটা করা উচিত নয়, তা হল জল দিয়ে আগুন নেভানো। কারণ তাতে রোগীর গায়ে ফোস্কার সংখ্যা অনেকগুণ বৃদ্ধি পায়;

রোগীকে কখনওই টক জাতীয় খাদ্য খাওয়ানো উচিত নয়, কারণ এতে ঘা পেকে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকতে পারে;

তেল-ঝাল জাতীয় খাদ্য রোগীর স্বাস্থ্যের পক্ষে হানিকারক;

পোড়া স্থানে কোনও ধরনের বস্ত্র বা কাপড় দিয়ে ঢাকা দেওয়া উচিত নয়;

ঘা শুকিয়ে এলে একদম চুলকানো ঠিক নয়, এতে পুনরায় ঘা হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে;

কিছু সতর্কতা

যখনই আগুনের কাছে কোনও কাজ করবেন, সর্বদা সচেতন থাকা উচিত;

কখনওই সিন্থেটিক কাপড়ের পোশাক পরে আগুনের কাছে যাওয়া উচিত নয়;

কেউ পুড়ে গেলে অহেতুক টেনশন না করে ঠান্ডা মাথায় তার শুশ্রুসা করা উচিত;

সঠিক সময়ে রোগীকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া প্রয়োজন।

তাই বাড়িতে এই ধরণের আকস্মিক দুর্ঘটনা ঘটলে অহেতুক ভয় না পেয়ে উপরিউক্ত নির্দেশগুলি মেনে চললেই শীঘ্রই নিরাময় সম্ভব।

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Most Popular

To Top