Mental health মনের যত্ন

সন্দেহ করলে কমে জীবনের গতি 

কাউকেই চট করে বিশ্বাস করে উঠতে পারেন না।  ছোটোখাটো সব ব্যাপারেই অন্যের ওপর সন্দেহে ভরে থাকে মন !!

কথায় আছে সন্দেহ অতি বিষম বস্তু!!!

আপনি বা আপনার কাছের মানুষ যদি সন্দেহবাতিক হন তাহলে কিন্তু সাবধান।  কমতে পারে জীবনের পরিধি।

পরীক্ষায় উঠে এসেছে সন্দেহপ্রবণ মানুষের আয়ু কম।

সুইডেনের স্টকহোম ইউনিভার্সিটির একদল গবেষক  ২৪ হাজার মানুষের ওপর গবেষণা করে এ তথ্য দিয়েছেন।

এই সন্দেহপ্রবণতা শুধু তাদের মানসিক স্বাস্থ্যের ওপরই নয় প্রভাব ফেলে শারীরিক স্বাস্থ্যের ওপরও।

অতিমাত্রায় সন্দেহ হৃদযন্ত্রের ওপর বাজে প্রভাব ফেলে। যা আয়ু কমে যাওয়ার অন্যতম কারণ।

গবেষণায় আরও বলা হয়েছে, সন্দেহপ্রবণ মানুষের তুলনায় যারা অন্যকে বিশ্বাস করেন, তারা বেশি দিন বাঁচেন। যারা অন্যকে ক্ষমা করেন, তারাও বাঁচেন বেশি দিন।

কারো কারো ক্ষেত্রে তা এমন অবস্থায় পৌঁছে যায় যে, সন্দেহপ্রবণতা মানসিক স্বাস্থ্যের জন্যও ক্ষতিকারক হয়ে দাঁড়ায়।

অন্যদিকে যেকোনো সম্পর্কে বিশ্বাস ভীষণই গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। বিশ্বাসের ওপর ভিত্তি করে গড়ে ওঠে সুন্দর সম্পর্ক।

কিন্তু অনেকসময় সঙ্গীর সন্দেহপ্রবণ মনোভাবের কারণে সুন্দর সাবলীল সম্পর্ক নষ্ট হয়ে যায়।

সন্দেহকে প্রশ্রয় দিলেই ঘটে যায় সর্বনাশ! বয়স বাড়তে থাকলে সন্দেহপ্রবণতার বাতিক কমতে থাকে। কমবয়সি মানুষদের মধ্যেই সন্দেহপ্রবণতার পরিমাণ বেশি।

গবেষণায় আরও বলা হয়েছে, সন্দেহপ্রবণ মানুষের তুলনায় যারা অন্যকে বিশ্বাস করেন, তারা বেশি  দিন বাঁচেন। যারা অন্যকে ক্ষমা করেন, তারাও বাঁচেন বেশি দিন।

গবেষণায় উঠে এসেছে যারা অতিরিক্ত মাত্রায় সন্দেহপ্রবণ তাদের হৃদযন্ত্রের উপর চাপ বাড়তে থাকে। আর সেটাই তাদের আয়ু কমিয়ে দেওয়ার কারণ হিসেবে মনে করা হচ্ছে ।

দ্বিধাহীনভাবে সবাইকে বিশ্বাস করার ক্ষেত্রে প্রতারিত হওয়ার ঝুঁকি অনেকটাই বেড়ে যেতে পারে।

ইতিবাচক চিন্তা-ভাবনা জীবনকে সুন্দর করে তুলতে পারে ঠিকই তবে দ্বিধাহীনভাবে সবাইকে বিশ্বাস করাটাও ঠিক নয় একেবারেই।

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Most Popular

To Top