Physical Health - শরীর স্বাস্থ্য

অতিরিক্ত মানসিক চাপে পড়তে পারে টাক

মাথা ভরা টাক দিলি আ-কার দিলি না,

টাক নিয়ে এই বাংলা গানটি একদা বিপুল জনপ্রিয়তা লাভ করলেও যাঁদের মাথাজোড়া টাক তাঁদের বিড়ম্বনার শেষ নেই।  বিশেষ করে ছেলেদের মাথায় টাক বেশি পড়ে। টাক পড়াকে চিকিৎসাশাস্ত্রের ভাষায় অ্যানড্রোজেনেটিক অ্যালোপেশিয়া বলে।

এই সমস্যা দেখা দিলে মাথার উপরিভাগের চুল ও দুই পাশের চুল পাতলা হয়ে যায়।

অতিরিক্ত মানসিক চাপ, কর্মব্যস্ততা, খুশকি, মাথার ত্বকের অপরিচ্ছন্নতা, অতিরিক্ত ডায়েট ও পুষ্টিহীনতার কারণেও টাকের সমস্যা দেখা দিতে পারে।

মাথার কিছু অংশের চুল পড়ে যাওয়াকে অ্যালোপেশিয়া এরিয়াটা ও পুরো মাথার চুল পড়ে যাওয়াকে অ্যালোপেশিয়া টোটালিস বলে।

চুল পড়ে যাওয়ার আরো একটি মারাত্মক প্রকাশ হচ্ছে  অ্যালোপেশিয়া ইউনিভার্সালিস।

এক্ষেত্রে মাথাসহ সমস্ত শরীরের লোম ঝরে যায়।

অনেকসময় এই সমস্যা মানসিক চাপের জন্যও দায়ী।

আবার মহিলাদের ক্ষেত্রে গর্ভাবস্থা, মেনোপজের পর বা পিরিয়ড বন্ধ হয়ে যাওয়ার পর অতিমাত্রায় ভিটামিন-এ  গ্রহণ, উচ্চ রক্তচাপের ওষুধ খাওয়ার ফলেও  এই সমস্যা দেখা দেয়।

এছাড়া বংশগত কারণেও টাকের সমস্যা দেখা দিতে পারে।

এছাড়াও আংশিক টাকের কারণ হিসেবে ডাই-হাইড্রোটেস্টোস্টেরন  হরমোনকে দায়ী করা হয়। শরীর ও মুখের চুলের বৃদ্ধিতে এই হরমোন সহায়তামূলক ভূমিকা রাখে।

প্রস্টেট ও মাথার চুলের ওপর এই হরমোন প্রতিকূল প্রভাব ফেলার ক্ষমতা রাখে, এরফলে পুরুষদের  আংশিক টাকের সৃষ্টি হতে পারে।

আটকাবেন কী উপায়ে

চুলপড়া আটকাতে প্রথমেই যেটা করতে হয়, সেটি হল মাথার স্ক্যাল্প পরিষ্কার করা।

চুল ও মাথার ত্বকের সবচেয়ে বড় যত্ন পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখা।

চুলের সঠিক যত্নের জন্য প্রথমেই চুলের সঠিক ধরন জেনে নেওয়া জরুরি।

যখন দিনে ১২৫টির বেশি চুল পড়ে এবং নতুন করে আর গজায় না তখনই মাথায় টাক পড়তে  শুরু হয়।

ওজন কমানোর সময় মাথার চুল ঝরে পড়তে পারে। অতিরিক্ত ডায়েট ও পুষ্টিহীনতার কারণেও টাকের সমস্যা দেখা দিতে পারে।

তাই ওজন কমানোর ক্ষেত্রে  অবশ্যই ডায়েটিশিয়ান, নিউট্রিশনিস্ট কিংবা চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী খাবার তালিকা নির্ধারণ করা প্রয়োজন।

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Most Popular

To Top