Lifestyle - লাইফস্টাইল

সকালে খালি পেটে চায়ের অভ্যেস, জানেন কতটা প্রভাব পড়ছে শরীরের ওপর

প্রতিদিন সকালে উঠে যাঁদের  এক কাপ চা না হলে চলেই না তাঁদের জন্য সুখবর।

কিন্তু চা খাওয়া নিয়ে নানা মুনির নানা মত। কেউ বলেন, চা খাওয়া স্বাস্থ্যের পক্ষে তেমন ভালো না।  আবার অনেকের মতে চা পান করলে শরীরের বেশ কিছু উপকার হয়।

আবার  কেউবা বলেন বিশেষভাবে চা খেতে হবে। তবে একথা মাথায় রাখতে হবে দুধ-চিনি দিয়ে চা খেলে কিন্তু শরীরে উপকারের বদলে অপকারই হবে।

সম্প্রতি বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, শরীরের পক্ষে চা আর কফি দুটোই খুব উপকারী।

গবেষণায় জানা গিয়েছে, প্রতিদিন এক থেকে তিনকাপ চা অথবা কফি খেতে পারলে দূরে সরিয়ে রাখা যায় হার্টের অসুখ এবং স্ট্রোক।

তবে সেটা একমাত্র ব্ল্যাক-কফি বা চায়ের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য।

আবার কফির থেকে চায়ের মধ্যে ক্যাফেইনের পরিমাণ অনেক কম থাকে।

সেদিক থেকে দেখতে গেলে সুস্বাস্থ্যের জন্য সবদিক থেকে ভাল ব্ল্যাক-টি বা গ্রিন-টি।

তাই ঘুম ভাঙার পর কেউ যদি এককাপ লাল চা ( চিনি ছাড়া ) খেতে পারেন তাহলে অনেকগুলি উপকার পাবেন।

১. সকাল যদি শুরু করা যায় এককাপ চা দিয়ে তবে শরীর আর্দ্র থাকবে। সারাদিন অনেক খাটনিও গায়ে লাগবে না।

২. ব্ল্যাক-টি এর মধ্যে প্রচুর পরিমাণ অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট রয়েছে। যা শরীর থেকে দূষিত পদার্থ বের করে দিতে সাহায্য করে।

শাকসবজির চেয়ে চায়ে কিন্তু অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট অনেকবেশি মাত্রায় পাওয়া যায়।

৩. চা কিন্তু ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে।  এর পলিফেনলিক নির্যাস ক্যান্সার জীবাণুর আক্রমণের আশঙ্কা কমায়।

চিনি ছাড়া লিকার চা এবং গ্রিন-টি যদি নিয়মিত খাওয়া যায় তাহলে কিন্তু ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা কমে অনেকটাই।

৪. হার্টকে ভালো রাখতে সাহায্য করে ব্ল্যাক-টি। নিয়মিত খেলে হার্টের সমস্যা কমে। এছাড়াও ব্লাড প্রেশার, কোলেস্টেরল, ট্রাইগ্লিসারাইড, ওবেসিটির সমস্যা থেকেও দূরে থাকা যায়।

৪. যারা ধূমপান করেন, তাদের ধূমপানের ফলে শরীরে সৃষ্ট ফ্রি র্যাডিক্যালস নষ্ট হয় চায়ের গুণে।

গ্রিন-টিতে রয়েছে থিয়ানিন, ক্যাফিন, ভিটামিন-এ, বি, সি, ই, এফ, ফ্লোরোফিলস এবং মিনারেলস। ভিটামিন -এ দৃষ্টিশক্তি

ভালো রাখে, ভিটামিন-বি জড়তা কাটাতে সাহায্য করে, ত্বক ভালো রাখে, কোলেস্টেরল কমাতে ও ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে বিশেষ ভূমিকা রাখে।

৫. খালি পেটে চা খেলে আরও একটি উপকার হয় শরীরের।

খাদ্যনালীতে জমে থাকা সব ধরনের ব্যাকটিরিয়া দূর হয়। অ্যালকোহল খাওয়ার ফলে অনেক সময় লিভারে টক্সিন তৈরি হয়।

চায়ের ভেষজ গুণ ও অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট এ সম্ভাবনাকে রোধ করে।

 

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Most Popular

To Top