Physical Health - শরীর স্বাস্থ্য

ভুঁড়ি নিয়ে নাজেহাল, কমানোর টিপস

কসরত করে শরীরের বাকি অংশের মেদ কমানো গেলেও ভুঁড়ি কমাতে বেশ বেগ পেতে হয়।  পেটের মেদ কমানো খুবই কঠিন কাজ।

আমাদের চারপাশে এমন অনেক মানুষই আছেন যাদের দেহের বাকি অংশ তেমনভাবে মেদবহুল না হলেও মধ্যপ্রদেশ বেশ স্ফীত।

হঠাৎ করেই  ভুঁড়ি হওয়া বা পেটে মেদ জমা স্বাস্থ্যের জন্য খুব একটা ভাল লক্ষণ নয়।

আবার অনেক চিকিৎসকই মনে করেন দেহে নানারকম রোগেরও লক্ষণ হতে পারে ভুঁড়ি।

অন্যদিকে এমনটাও মনে করা হয়, ভুঁড়ির কারণে ডায়াবিটিস, উচ্চ রক্তচাপ, ফ্যাটি লিভার, হার্টের অসুখ, স্ট্রোক ইত্যাদি রোগের আশঙ্কা বাড়ে।

ভুঁড়ি হওয়ার কারণ কি?

আমরা সারাদিন যে খাবার খাই, তা থেকে আমাদের শরীরে কাজকর্ম করার শক্তি আসে। তবে এখনকার ব্যস্ত লাইফস্টাইলে বেশিরভাগ সময়েই আমরা উচ্চ ক্যালোরিযুক্ত খাবার খেয়ে ফেলি।

অথচ সারাদিন অফিসে বসে কাজ করা এবং শারীরিক কসরত না করার ফলে সেই ক্যালোরি খরচ হয় না।

এর ফলে সেই অতিরিক্ত খাবার, ফ্যাট বা গ্লুকোজ-এর আকারে শরীরে জমে যায়।

এছাড়াও অতিরিক্ত ফ্যাট খাবার খাওয়ার ফলে তা শরীর ঠিকমতো না পোড়াতে পারলে সেই ফ্যাট দেহের অভ্যন্তরেই সঞ্চিত হতে থাকে।

ভাল বা উপকারী ফ্যাট থেকে কখনই প্রদাহ হয় না। সামুদ্রিক মাছ, নারকেল তেল, অ্যাভোকাডো, অলিভ অয়েল, ঘি-তে থাকা ফ্যাট শরীরে মেদ সঞ্চয় করে না।

প্রসেসড ফুডের মধ্যে খুব বেশি পরিমাণ রিফাইন্ড কার্বোহাইড্রেট ও সুগার থাকে যা রক্তে ইনসুলিনের মাত্রা বাড়িয়ে দেয়।

সুগার যদি রক্তে চলে আসে এবং এনার্জি উত্পাদনের জন্য ব্যবহৃত না হয় তা হলে শরীরে তা ফ্যাট রূপে সঞ্চিত হবেই।

এক্সারসাইজ, খাবার কমানো সবেতে যে লাভ হয় এমন নয়। অনেক চেষ্টা করে, জিমে গিয়ে এবং ডায়েট কন্ট্রোল করলেও অনেকসময় ভুঁড়ি কমতে চায় না।

কীভাবে কমাবেন বাড়তি মেদ

১. বাড়ির রান্না খাবার খান।  বেশি তেলমশলা বা ফাস্ট ফুড খাওয়া বন্ধ করুন।  প্রসেসড ফুড খাবেন না।

ছোট মাছ, চিকেনের ব্রেস্ট পিস খান। খাবারের পাতে রাখুন প্রচুর পরিমাণে শাকসবজি ও ফল।

২. পেটের মেদ কমাতে চাইলে মদ্যপান বন্ধ । মদ্যপানের জন্য বাড়ে পেটের মেদ।

অ্যালকোহলে এমন কিছু উপাদান আছে যা ওজন বৃদ্ধি করে থাকে। এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে চাইলে সবার আগে মদ্যপান বন্ধ করুন।

এই উপায়ে যেমন মেদ কমবে তেমনই শরীর থাকবে সুস্থ।

৩. ভালো ঘুম । ভুঁড়ি কমাতে গেলে চাই শান্তির ঘুম। এক্ষেত্রে দিনে ৭ ঘণ্টা ঘুম চাই। দিনের থেকে রাতের বেলা ঘুমোনো ভালো।

৪. জলপান করুন । শরীরের জলের পর্যাপ্ত উপস্থিতি থাকলে ফ্যাট দ্রুত গলে। তাই তৃষ্ণা চেপে না রেখে জলপান করুন।

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Most Popular

To Top