Diet - ডায়েট

এই ডায়েট ফলো করে সাতদিনেই ঝরান কয়েক কিলো বাড়তি মেদ

মাত্র সাতদিনেই প্রায় ৫-৭ কিলো মেদ ঝরবে !! শুনতে অবাস্তব বলে মনে হলেও এই ডায়েট অনুসরণ করলে আপনিও ঝরিয়ে ফেলতে পারেন বাড়তি ওজন।

ডায়েটের নাম জিএম ডায়েট বা জেনারেল মোটরস ডায়েট।

আশ্চর্য ডায়েটে নাকি সাতদিনে বেশ কয়েক কেজি ওজন কমিয়ে ফেলা সম্ভব বলে মনে করা হয়।

যারা অতিরিক্ত ওজন নিয়ে বেশ বিপাকে পড়েছেন এবং সামনে বড় কোনও অনুষ্ঠান বা বিয়ের প্রোগ্রাম রয়েছে তাঁদের ক্ষেত্রে এই ডায়েট প্ল্যানটি বেশ কাজে লাগতে পারে ।

তবে এই ডায়েট মেনে চলার আগে জেনে নিতে হবে কারা জি এম ডায়েট মেনে চলতে পারেন। জিএম ডায়েট প্ল্যান সবার জন্য উপযোগী নয়।

উচ্চ রক্তচাপ, সুগার, কিডনির সমস্যা বা কোভিডে ভুগে উঠেছেন তাঁদের ক্ষেত্রে এই ডায়েট কঠোরভাবে নিষিদ্ধ।

মূলত ফল আর সবজির  ওপর নির্ভর করে এই ডায়েটচার্ট তৈরি করা হয়েছে।

জেনে নেওয়া যাক কীভাবে মেনে চলবেন ৭ দিনের এই জিএম ডায়েট প্ল্যান । তবে জেনে রাখা ভালো  একটানা ৭ দিনের বেশি এই ডায়েট অনুসরণ  করা চলবে না।

ডায়েট চলাকালীন কোনও ভারী শরীরচর্চা না করাই ভালো।

প্রথম দিন

ডায়েট শুরুর প্রথম দিন খাবারের তালিকায় শুধু ফল। এটি ডায়েট প্ল্যানের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দিন ।  যত ইচ্ছে ফল খেতে পারেন।

তরমুজ, খরমুজ বা কম মিষ্টি জাতীয়  ফল খাওয়ায় জোর দেওয়া হয়  এই ডায়েটে । কলা কিন্তু সম্পূর্ণ বাদ দিতে হবে।

সঙ্গে  কমপক্ষে ৮-১২ গ্লাস জল  অবশ্যই পান করবেন।

দ্বিতীয় দিন

প্রথম দিন খাবারের তালিকায় যেমন শুধু ফল ছিল তেমনই দ্বিতীয় দিনে থাকবে শুধুমাত্র সবজি।  কাঁচা বা রান্না করে যেকোনও ভাবেই খেতে পারেন আপনার পছন্দের সবজি।

তবে রাঁধার সময় অবশ্যই তেল ব্যবহার করা চলবে না।  তাহলে ডায়েটের উদ্দেশ্য মাঠে মারা যাবে।

সকালের ব্রেকফাস্টে একটি বড়  সেদ্ধ আলু শুধু নুন ও গোলমরিচ দিয়ে খেতে হবে।  বাকি সারাদিন আলু খাবেন না।

zযত ইচ্ছে সবজি খেতে পারেন। সঙ্গে শশা।  আর প্রচুর জল।

তৃতীয় দিন

ফল আর সবজি মিলিয়ে খেতে হবে। তবে আলু বা কলা খাওয়া চলবে না। এই দিন আপনি যেকোনো সবজি ও ফল ইচ্ছেমত পেট ভরে খেতে পারবেন। যত ইচ্ছে শশা খেতে পারেন।

চতুর্থ দিন

কলা আর দুধই হবে সারা দিনের খাবার। ৬টা বড় অথবা ৮ ছোট কলা খেতে পারেন। লো ফ্যাট দুধ ৩ গ্লাস খেতে হবে সারা দিনে। সকালের খাবারে একটি কলা এবং এক গ্লাস দুধ রাখুন এবং দুপুরের আগে বা সকাল ১১-১২ টার দিকে আরো দুটি কলা খেতে পারেন।

দুপুরে এক গ্লাস দুধ এবং ২ টি কলা খান। বিকেলের দিকে প্রয়োজন অনুযায়ী ২-৩ টি কলা খেতে পারবেন। রাতে দুধ।

পঞ্চম দিন

এই দিনের তালিকায় যোগ হবে প্রোটিন। ২৮৪ গ্রাম প্রোটিন খেতে হবে। তেল ছাড়া রান্না করা মাছ, চিকেন বা পনীর  এবং তার সঙ্গে  সঙ্গে ৬টা টম্যাটো  খেতে হবে।

টম্যাটো  খাওয়ার ফলে শরীরে যে বাড়তি ইউরিক অ্যাসিড ঢুকবে তা ধুয়ে ফেলতে জল খাওয়ার পরিমাণ বাড়িয়ে দিন। শশাও খেতে পারেন।

ষষ্ঠ দিন

ডায়েটের এই ষষ্ঠ দিনে আবারও  সেই ভেজিটেবল ডায়েট করতে হবে। সারাদিনে যত খুশি সবজি খেতে পারবেন, তবে তেল দিয়ে রান্না করবেন না।

আর দুপুরে সবজির সঙ্গে এক কাপ ব্রাউন চালের ভাতও খেতে পারবেন।

দিনে অবশ্যই ৮-১২ গ্লাস জল পান করতে ভুলবেন না।

সপ্তম দিন

ব্রাউন রাইস, সবজি, ফল খেতে পারেন। ফলের রস খান সারাদিন ধরে।  তরমুজ, কমলা এসব ফলের জুস বেশি করে খাবেন।

এছাড়াও বাঁধাকপি, সেলেরি, টম্যাটো, পেঁয়াজ এবং ক্যাপসিকাম দিয়ে তৈরি ‘জিএম স্যুপ’  দু-তিন বাটি করে প্রত্যেকদিন খাওয়া যেতে পারে।

খিদে পেলে ‘জিএম স্যুপ’  খাওয়ার অনুমতি দেয় এই ডায়েট। এতে চটজলদি ওজন কমে।

তবে একটানা এই ডায়েট মেনে চললে শরীরে প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদানের ঘাটতি দেখা দিতে পারে।

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Most Popular

To Top