Mental health মনের যত্ন

পরিকল্পনা করেই ধূমপানকে বলুন গুডবাই

সিগারেটের নেশায় যে একবার মজেছে সেই জানে সেই অভ্যাস ত্যাগ করাটা কতটা কঠিন।  যারা বুঝেছেন ধূমপান স্বাস্থ্যের পক্ষে কতটা ক্ষতিকর তারা এই নেশার হাত থেকে রেহাই পেতে চাইলেও ব্যাপারটা অতটাও সহজ নয়।

যাঁরা ধূমপানে আসক্ত, তাঁদের জন্য এই সিদ্ধান্ত নেওয়া যেমন কঠিন, তার চেয়েও কঠিন হলো তাকে বাস্তবায়ন করা। দীর্ঘদিন ধরে যাদের এই নেশা রয়েছে, হঠাৎ ছেড়ে দিলে কিছু সমস্যা হয়তো দেখা দিতে পারে।

তবে বলা যত সহজ, এটি করা ততই কঠিন। অনেকেই আছেন যারা ধূমপান ত্যাগের সিদ্ধান্ত নিয়েও শেষ পর্যন্ত তা ধরে রাখতে পারেন না। তাই হার্টের সমস্যা, ফুসফুসের ক্যানসার এড়াতে সিগারেটের ধোঁয়াকে গুডবাই বলাটাই বুদ্ধিমানের  কাজ।

এই নেশার ফলে শুধু যে ধূমপায়ী ব্যক্তির শরীরে ক্ষতি হয় তা কিন্তু নয়। একইসঙ্গে বাড়ির বয়স্ক সদস্য ও ছোট্ট শিশুটির জীবনে ডেকে আনতে পারে ভয়ঙ্কর সব রোগ।

ধূমপায়ীরা যদি ধূমপান ছাড়ার সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে অটল থাকেন, তাহলে নিচের টিপসগুলো আপনার জন্য।

  • প্রথমেই ঠিক করে নিন ঠিক কোন কারণে আপনি সিগারেটের সুখটান থেকে বঞ্চিত হতে চাইবেন।  তার একটি তালিকা তৈরি করে নিন।  খুব গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি কারণ নিজের সামনে দাঁড় করিয়ে দিলে ধূমপান ছেড়ে দেওয়াটা সহজ হয়।
  • যখন ধূমপানের ইচ্ছা জাগবে, তখনই এসব কারণ ভাবতে শুরু করবেন। এতে আপনার ধূমপানের প্রতি আগ্রহ কমতে থাকবে।
  • ভালোমতো পরিকল্পনা করেই ধূমপান ছাড়ুন।  নিজের কাছে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হন।  একটি নির্দিষ্ট তারিখ নির্ধারণ করুন। মনে রাখবেন, এই তারিখ কোনোভাবেই আর পিছিয়ে দেওয়া চলবে না ।

**তারিখ বাছাইয়ের সময় এমনভাবে নিজেকে বোঝাবেন, যেন  এই দিনটিই ধূমপান ত্যাগের জন্য শেষ তারিখ। ওই তারিখের পর ধূমপায়ী বন্ধুদের                      সঙ্গ এড়িয়ে চললেই ভাল।

  • দীর্ঘদিন ধরে যাদের এই নেশা রয়েছে, হঠাৎ ছেড়ে দিলে কিছু সমস্যা হয়তো দেখা দিতে পারে। মানসিকভাবেও দুর্বল মনে হতে পারে। সুতরাং এটি ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিলে আগে নিজেকে মানসিকভাবে প্রস্তুত করুন। দরকার পড়লে চিকিৎসক বা কাউন্সেলরের সঙ্গে পরামর্শ করুন।
  • ধূমপান ছাড়ার সঙ্গে সঙ্গে কিছু খাদ্যাভ্যাস পাল্টে দেখতে পারেন। একটি গবেষণা বলছে, অনেকের কাছে মাংসজাতীয় খাবার খাওয়ার পর ধূমপান উপভোগ্য হয়ে ওঠে।

    ** অন্যদিকে, ফল কিংবা সবজিজাতীয় খাবারের পর ধূমপান কিছুটা স্বাদ হারায়।

            **যেকোনও ধরনের ভিটামিন-সি সমৃদ্ধ ফল খান। কমলালেবু, পাতিলেবু, বেদানা চলতেই পারে। দেখবেন, সিগারেট খাওয়ার আর ইচ্ছে জাগবে না। 

  • গবেষকেরা বলছেন, অ্যালকোহলমিশ্রিত পানীয়, কোমলপানীয়, চা, কফি ইত্যাদি পানের সময় অনেকে মনে করেন যোগ্য সংগত সিগারেট। যা পানীয়র স্বাদ আরও বাড়িয়ে দেয়। এইসব পানীয় যতটা সম্ভব এড়িয়ে চলতে হবে।
  • মুখ খালি থাকলেই ধূমপানের ইচ্ছে জাগবে। তাই ধূমপান বাদ দিতে চাইলে মুখ খালি রাখা যাবে না। এ সময় মুখে চকোলেট, লজেন্স বা চুইং-গাম রাখুন। এছাড়াও বাজারে নিকোটিনের স্বাদযুক্ত চুইং-গাম পাওয়া যায়।  সেগুলি চিবোতে পারেন।

গবেষণায় দেখা গেছে, নিকোটিন গামের মতো বস্তু ধূমপান ছাড়ার প্রক্রিয়ায় বিশেষভাবে সহায়তা করে। ধূমপান হঠাৎই ছেড়ে দিলে আপনার মাথাব্যথা হতে পারে, মুডসুইং হতে পারে।

তাই অল্পমাত্রায় নিকোটিন দেওয়া এই গাম সহায়তা করে।

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Most Popular

To Top