Lifestyle - লাইফস্টাইল

রুক্ষ চুলের কেয়ার

গরম পড়তেই ঘামের কারণে এমনিতেই চুলের স্বাস্থ্যের দফারফা। তার সঙ্গে যোগ হয়েছে চুলের রুক্ষতা।  রোদে বেশি ঘোরাঘুরি করলে চুলের স্বাভাবিক ঔজ্জ্বল্য কমে চুল ম্যাড়মেড়ে ও প্রাণহীন হয়ে ওঠে।

এরসঙ্গে  যুক্ত হয় নানারকম কেমিক্যালযুক্ত শ্যাম্পু বা স্টাইলিং-এর সরঞ্জামের নানা ক্ষতিকারক উপাদান। সঠিকভাবে যত্ন না নিলে অনেকের চুলই রুক্ষ হয়ে পড়ে। জেল্লা হারায়।

বিশেষ করে গরমকালে কোনও পার্টি বা অনুষ্ঠানে ঠিকঠাক হেয়ার স্টাইল না হলে সমস্ত সাজটাই মাটি হতে বসে।

স্বাভাবিকভাবে যাদের চুল শুষ্ক তাদের গ্রীষ্মকাল শুরু হলেই কপালে চিন্তার ভাঁজ পড়ে যায়।  কীভাবে ফিরিয়ে আনবেন চুলের হারিয়ে যাওয়া চকচকে ও  মসৃণ ভাব।

তাই গ্রীষ্মকালে প্রত্যেকদিন চুলের যত্ন নেওয়া অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

বেশ কয়েকটি টোটকা বা  ঘরোয়া উপাদান রয়েছে যা ব্যবহার করলে  ক’দিনেই চুল হয়ে উঠবে মোলায়েম ও সতেজ। সেগুলি দৈনন্দিন ব্যবহার করেই  শুষ্ক চুলে আর্দ্রতা ফিরিয়ে আনা যেতে পারে।

শ্যাম্পু এবং কন্ডিশনার চুলের যত্নের ক্ষেত্রে প্রথম যে বিষয়টি সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ তা হল সঠিক শ্যাম্পু ও কন্ডিশনার।  যে শ্যাম্পু ব্যবহার করছেন, তা থেকে চুল রুক্ষ হচ্ছে না তো ?

প্রয়োজনে শ্যাম্পুর ব্র্যান্ড চেঞ্জ করে দেখুন। আপনার চুলের ধরন অনুযায়ী শ্যাম্পু বাছুন। চুলের ধরন অনুযায়ী হাইড্রেটিং শ্যাম্পু এবং কন্ডিশনার ব্যবহার করুন।

চেষ্টা করবেন  সালফেট-মুক্ত শ্যাম্পু ব্যবহার করতে। শ্যাম্পু ব্যবহারের পরেই কন্ডিশনার ব্যবহার করতে ভুলবেন না। কন্ডিশনার না লাগালে চুল রুক্ষ হতে বাধ্য।

হেয়ার প্যাক মুখের পরিচর্চায় যেমন ফেসপ্যাক দরকার হয় তেমনই চুলের স্বাস্থ্য বজায় রাখতে সপ্তাহে একদিন চুলে প্যাক লাগানো জরুরি।  বিভিন্ন হেয়ার প্যাক চুল ময়শ্চারাইজ করে, পুষ্টি যোগায়, উজ্জ্বলতা ফিরিয়ে আনে, চুল মসৃণ ও নরম করে তোলে।

শ্যাম্পু এবং কন্ডিশনার ছাড়াও  বাড়িতে তৈরি হেয়ার প্যাক ব্যবহার করে দেখতে পারেন।  এতে একদিকে  চুলের ফ্রিজি ভাব দূর হবে। তেমনই চুল হবে ম্যানেজেবল এবং পুষ্টিতে ভরপুর।  ক্ষতিগ্রস্ত চুল মেরামত করে।

বাড়িতে কীভাবে বানাবেন এই হেয়ার প্যাক :

. আমন্ড অয়েল আর ডিম :

১ টেবিল চামচ আমন্ড অয়েল নিন।  তাতে একটি কাঁচা ডিম ভেঙে দিন ।  দু’টিকে মিশিয়ে নিয়ে  পুরো চুলে ভালো করে লাগিয়ে নিন। স্ক্যাল্পেও লাগান। এবার শাওয়ার ক্যাপ পরে নিন।

১৫-২০ মিনিট পরে চুলে শ্যাম্পু করে নিন।

. কলা  মধু :

রুক্ষ চুলের জন্য কলা ও মধু খুব ভালো কাজ দেয়।  তাই এই দু’টি উপাদান দিয়ে হেয়ার প্যাক তৈরি করে নিন।

কলা ভালো করে চটকে নিয়ে তাতে মধু মিশিয়ে চুলে লাগালে চুল নরম ও মসৃণ হয়ে উঠবে।

. অ্যালোভেরা তেলের প্যাক :

দুই টেবিলচামচ ফ্রেশ অ্যালোভেরা জ্যুস, দুই টেবিলচামচ এক্সট্রা ভার্জিন নারকেল তেল আর এক চা চামচ মধু একসঙ্গে মিশিয়ে নিন। তারপর চুলের আগা থেকে গোড়া ভালো করে মাখিয়ে নিন।

১ ঘণ্টা পর শ্যাম্পু করবেন।

চুলকে দিন তেলের পুষ্টি :

চুলকে পুষ্টি জোগাতে অর্গ্যানিক অয়েলের কোনও জুড়ি নেই। তাই চুল অতিরিক্ত রুক্ষ হলে, দু-দিন অন্তর ঈষদুষ্ণ তেল মালিশ করুন চুলে।

এতে রুক্ষতা নিয়ন্ত্রণে থাকবে, সেইসঙ্গে চুলের জেল্লাও বাড়বে।

নারকেল তেল, আমন্ড অয়েল, অলিভ অয়েল চুলকে ময়শ্চারাইজ করে।

কয়েক ফোঁটা তেল নিয়ে চুলের শুষ্ক প্রান্তে লাগান এবং আলতো করে আঁচড়ান। চুলে তেল লাগিয়ে ভাল করে ম্যাসাজও করতে পারেন।

পারলে সারা রাত সেই তেল মাথায় রেখে দিন। চুল কোমল হবেই।

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Most Popular

To Top