Physical Health - শরীর স্বাস্থ্য

অবাঞ্ছিত আঁচিল, দূর করে ফেলুন ঘরোয়া উপায়ে

আমাদের দেহের সৌন্দর্যের হানি ঘটাতে পারে অবাঞ্ছিত আঁচিল।  এটি এমন এক ত্বকের সমস্যা, যা না চাইতেই উড়ে এসে জুড়ে বসে আমাদের ত্বকের ওপর।  ত্বকের উপর হঠাৎ গজিয়ে ওঠা আকারে ছোট একধরনের মাংসপিন্ডকে আঁচিল বলা যেতে পারে । আঁচিলকে ‘মেলানোসাইটিক নেভি’ও বলা হয়ে থাকে।

মুখে, গলায় বা শরীরের এখানে-সেখানে  ত্বকের নীচে বা উপরের স্তরে উভয় স্থানেই হতে পারে। সাধারণত এরা মুখে, বাহুতে, ঘাড়ে এবং পায়ে হয়ে থাকে। আঁচিল সাধারণত বাদামী, কালো, লাল, গোলাপি রঙের হতে দেখা যায়। আঁচিলের আকার, আকৃতি এবং রঙ ব্যক্তিবিশেষে বিভিন্ন রকম হতে পারে।

যদি একের পর এক ছোট-বড় আঁচিল বের হয় তাহলে সৌন্দর্যের হানি তো ঘটায়ই তেমনই বিড়ম্বনার সৃষ্টি করে।  মোটামুটি চার ধরণের আঁচিল আমাদের শরীরে গজিয়ে উঠতে দেখা যায়।

প্রথম ধরনের আঁচিলকে বলা হয় অ্যাক্রোকর্ডন বা স্কিন ট্যাগ।

দ্বিতীয় ধরনের নাম ভেরুকা বা ওয়ার্টস।

তৃতীয় ধরনের আঁচিলকে বলা হয় মোল।

 চতুর্থ ধরনটিকে বলা হয় সেবোরিক কেরাটোসিস। এটিকে জন্মগত আঁচিলও হিসেবে ধরা হয়ে থাকে। 

আঁচিল বড় নাছোড়বান্দা সমস্যা।  এর মধ্যে ভেরুকা বা ওয়ার্টস ছোয়াঁচে।  বাকিগুলি অতটাও ছোঁয়াচে নয়।

আগে বাড়িতে নানারকম পদ্ধতিতে আঁচিলকে শরীর থেকে বিচ্ছিন্ন করা হতো।  কিন্তু সেগুলি অবৈজ্ঞানিক ও বিপদজনক।  তাই মনে হলে ডার্মাটোলজিস্ট -এর সঙ্গে পরামর্শ মেনে চিকিৎসা করতে হবে।

তবে প্রাকৃতিক উপাদানগুলিকে একবার কাজে লাগিয়ে দেখতে পারেন।  আঁচিল অপসারণের জন্য কিছু ঘরোয়া উপায় আছে। এবার তাহলে সেগুলো জেনে নিই ।

১. ​অ্যাপেল সিডার ভিনিগার  ​অ্যাপেল সিডার ভিনিগারের  অ্যাসিড উপাদান আঁচিল অপসারণে বেশ কার্যকরী ভূমিকা নিতে পারে।

     কিভাবে লাগাবেন :

একটি তুলোয় অ্যাপেল সিডার ভিনিগার ভিজিয়ে নিয়ে  আঁচিলে লাগান;

এরপর একটি ব্যান্ডেজ লাগিয়ে সারারাত রেখে দিন;

এভাবে ১০ দিন করুন বা আঁচিল পড়ে যাওয়া পর্যন্ত করুন;

অ্যাপেল সিডার ভিনিগার লাগানোর আগে আঁচিলের চারপাশের ত্বকে পেট্রোলিয়াম জেলি লাগিয়ে নিন।

২. ডিম ডিমের সাদা ও কুসুম একসঙ্গে আঁচিলের ওপর লাগিয়ে রাখলে উপকার পাবেন।

পরপর দুই সপ্তাহ ধরে ডিমের সাদা অংশ ও কুসুম মিশিয়ে আঁচিলের ওপর লাগিয়ে ৫-৭ মিনিট পর্যন্ত রাখুন।

শুকিয়ে গেলে সাবান ও ঠান্ডা জল দিয়ে ভালো করে ধুয়ে নিন।

. কলা আঁচিল অপসারণের সবচেয়ে ভালো উপায় হচ্ছে কলা। তাজা পাকা কলার খোসা ত্বকে আচিল শুঁকিয়ে যেতে সাহায্য করে ।

কলার খোসার ভেতরের অংশটা আঁচিলের উপর লাগিয়ে ব্যান্ডেজ দিয়ে ঢেকে দিন;

প্রতিদিন ১ ঘন্টা এভাবে রাখুন;

এতে আঁচিল শুকিয়ে পড়ে যাবে।

. রসুন  রসুনে এমন একটি এনজাইম থাকে যা রঞ্জক উৎপাদক কোষগুচ্ছকে ভেঙ্গে দিতে পারে এবং কালো রঙকে হালকা করতে সাহায্য করে।

রসুনের একটি কোয়া ভালো করে থেঁতলে নিন;

আঁচিলের চারপাশে পেট্রোলিয়াম জেলি লাগিয়ে নিন, কারণ রসুন ত্বকে জ্বলুনি সৃষ্টি করতে পারে;

রসুনের পেস্ট আঁচিলের উপর লাগিয়ে সারারাত রাখুন;

৫ দিনের মধ্যেই আঁচিল পড়ে যাবে।

 

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Most Popular

To Top