Lifestyle - লাইফস্টাইল

শীতের মতো গরমেও দরকার পায়ের যত্ন

শীতকালের পা ফাটার সমস্যা আমাদের কমবেশি সকলকেই ভোগায় । আমরা এটা ভেবে থাকি শীত শেষ মানে পায়ের সমস্যা কমবে । তবে এটাও সত্যি শীতের তুলনায় গরমকালে পায়ের চিকিৎসকদের কাছে রোগীর সংখ্যা বাড়তে দেখা গেছে ।

আমরা  শীতকালে পায়ের যত্ন (foot care)নিলেও বছরের বাদবাকি সময়ে বেশ উদাসীন হয়ে পড়ি । কিন্তু পায়ের সুস্থতা বজায় রাখতে সবসময় পায়ের প্রতি যত্নশীল হতে হবে, ঋতু যেটাই আসুক না কেন । এখানে পায়ের কিছু সাধারণ সমস্যা ও ঘরোয়া সমাধান দেওয়া হল ।

পা ঢাকা জুতো

গরমকালে  রোদ  ও তাপ থেকে বাঁচতে যতটা সম্ভব পা ঢাকা দেওয়া জুতো পরুন । তা নাহলে রোদে পুড়ে পা কালচে হয়ে যেতে পারে ।

সানস্ক্রিন ও সানব্লক ক্রিম

আমরা রোদে বেরোনোর আগে মুখে, হাতে ভালো করে সানস্ক্রিন ও সানব্লক ক্রিম মেখে বেরোলেও পায়ের দিকে তাকাতে ভুলে যাই । তাই বাড়ি থেকে বের হওয়ার আগে পায়ে ময়শ্চারাইজার লাগিয়ে নিন ।  তারপর সানব্লক বা  সানস্ক্রিন লাগান । আর স্নান করার সঙ্গে সঙ্গে পায়ে ভাল করে ময়শ্চারাইজার লাগাবেন । এতে পায়ের শুষ্কতা অনেকটা কমে যাবে । পায়ের রুক্ষতা দূর করতে রাতে ঘুমোনোর আগে পায়ে ময়শ্চারাইজার লাগাতে ভুলবেন না ।

ফোসকা পড়লে ঢেকে রাখুন

গরমে অনেকক্ষণ  জুতো পরে থাকলে পায়ে ফোসকা পড়াটা অস্বাভাবিক কিছু নয় ।  এমনকি যথেষ্ট সতর্কতা অবলম্বনের পরও ফোসকা পড়তে পারে । চিকিৎসকদের পরামর্শ, ফোসকা হলে এটাকে ফাটাবেন না । ফোসকা ফাটলে সংক্রমণের ঝুঁকি রয়েছে । যেটা করণীয়, সেটা হল ফোসকাতে অ্যান্টিবায়োটিক ক্রিম লাগান, তার ওপরে একটি ব্যান্ডেজ দিয়ে ঢেকে দিন । এটা কিছুদিনের মধ্যে সেরে উঠবে । কিন্তু এটা অস্বাভাবিক বড় হলে অথবা ভেতরে রক্ত দেখা গেলে দ্রুত ডাক্তার দেখান ।

বাড়ি ফিরে পায়ের যত্ন

১.বাইরে ঘোরাঘুরি করলে বাড়ি  ফিরে তিন টেবিল চামচ লেবুর রসের সঙ্গে এক টেবিল চামচ চিনি মিশিয়ে পায়ে ম্যাসাজ করুন । এবার হালকা গরম জল দিয়ে পা ধুয়ে ফেলুন । এতে পা নরম ও মসৃণ হবে ।

২. ঈষদুষ্ণ গরম জলের মধ্যে পাঁচ মিনিট পা ভিজিয়ে রাখুন । এবার ঝামা পাথর দিয়ে পায়ের গোড়ালি ভালো করে ঘষুন । নিয়মিত এভাবে পা ঘষলে পায়ের গোড়ালি নরম ও মসৃণ থাকবে । তারপর ময়শ্চারাইজার লাগিয়ে নিন ।

৩. বাড়িতে ফেরার পর একটি গামলার মধ্যে বরফ নিয়ে তাতে পা ভিজিয়ে ১০ মিনিট বসে থাকুন । এতে পায়ের রক্ত সঞ্চালন বেড়ে যাবে এবং আপনার ক্লান্তি দূর হবে ।

পা ভালো রাখতে ভিনিগার বাথ

পায়ে সংক্রমণ হলে বা চুলকালে বাথ সল্ট বা হোয়াইট ভিনিগার মিশ্রিত জলে পা ভেজাতে পরামর্শ দেন চিকিৎসকরা । তবে  ভিনিগার বাথ সংক্রমণটিকে নিরাময় করবে না, কিন্তু চুলকানি কমাবে । সংক্রমণ হলে ওষুধ লাগাতে হবে ।

টাইট জুতো নয়– জুতো টাইট পরতে ভালোবাসেন অনেকে । তবে এই সময়টায় টাইট জুতো পরলে সমস্যা বাড়ার আশঙ্কাই থাকে বেশি । হতে পারে ফোসকা, চুলকানির মতো সমস্যা । তাই প্রতিটি মানুষকে অবশ্যই এইসময়টায় টাইট জুতো না পরে হালকা আরামদায়ক জুতো পরতে হবে ।

দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে ? জুতো শুকিয়ে পরুন

গরম মানেই ঘাম আর তার থেকেই জীবাণুর বাড়বাড়ন্ত । গরমকালে পা ঘেমে গিয়ে জুতো বা পা থেকে বিশ্রী দুর্গন্ধ হয় । পা ঘামলে কেবল দুর্গন্ধই ছড়ায় না, গোড়ালি ফাটতে পারে, ত্বক খসখসে হয়ে উঠতে পারে বা ছত্রাক সংক্রমণ হতে পারে । যারা আবদ্ধ জুতো পরেন তাদের এই সমস্যা বেশি হয় । এটা এড়াতে জুতো ব্যবহারের পরপরই বাতাসে শুকাতে দিন । এতে ব্যাকটেরিয়া ও অন্যান্য জীবাণুর বংশবৃদ্ধি কমবে । জুতো পরার আগে পায়ে পাউডার ব্যবহার করতে পারেন ।  পায়ের ঘাম কমাতে প্রতি সকালে ও রাতে অ্যান্টি-পারস্পিরেন্ট বা ডিওডোরেন্ট স্প্রে করতে পারেন ।

ভেজা পায়ে জুতো পরবেন না ।  পা ভালো করে শুকিয়ে, মুছে তারপর জুতো পরুন ।  স্নানের সময় ভাল করে পা ও আঙুলের ভাঁজে সাবান বা শ্যাম্পু দিয়ে ঘষে পরিষ্কার করুন ।

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Most Popular

To Top