Lifestyle - লাইফস্টাইল

ঋতুস্রাবে প্যাড না ট্যাম্পন ?

ঋতুস্রাব মানে আগে যে ঢাকঢাক গুড়গুড় ব্যাপারটা ছিল, শিক্ষার দৌলতে সেই ট্যাবু ক্রমশই কাটছে । শহুরে আধুনিক সমাজের নারীরা ক্রমশই এনিয়ে লজ্জার আড়াল থেকে বেরিয়ে খোলাখুলি কথা বলতে শুরু করছেন। তাতে শামিল হচ্ছেন পুরুষও । তবে সেই বৃত্ত এখনও খুব বড় আকারের সেটা বলা যাবে না । ভারতের বৃহত্তর সমাজে প্রত্যন্ত গ্রামে ট্যাম্পন (Tampon) তো দূরের কথা স্যানিটারি ন্যাপকিন, প্যাডের কথা জানেন না বহু নারীই ।

তবে যুগ বদলাচ্ছে । ঋতুস্রাবের দিনগুলোতেওমেয়েরা এখন ঘুরছেন, অফিস করছেন, ট্রেকিং করছেন, পাহাড়ে চড়ছেন, সাঁতার কাটছেন, জিম করছেন । চিকিৎসাবিজ্ঞান বলছে, না, এতে কোনও অসুবিধে নেই । ঋতুস্রাবের দিনগুলো ইচ্ছেমতো কাটাতে কোনও বাধা নেই ।

কিন্তু ওই যে প্যাড নিয়ে অস্বস্তি । দাগ লাগার চিন্তা । তাছাড়া বড় সমস্যা, যদি সুইমিং পুলে নামতে হয় বা সমুদ্রে স্নান করতে হয় ! ঋতুস্রাবের জন্য সেগুলো কি করা সম্ভব ?

সম্ভব । তার কারণ, যতদিন যাচ্ছে ঋতুস্রাবের দিনগুলোয় মেয়েদের কীভাবে আরও সুরক্ষা, আরও আরাম দেওয়া যায় সেটা নিয়েই ভাবনা শুরু হয়েছে । তাই স্যানিটারি প্যাড যেমন বদলাচ্ছে, সুবিধাজনক হচ্ছে তেমনই বাজারে এসেছে ট্যাম্পন (Tampon) ও মেনস্ট্রুয়াল কাপের (menstrual cup )মতো জিনিস ।

এবার প্রশ্ন এগুলো ব্যবহার করা কি ঠিক ? সুবিধে, অসুবিধে কোনটায় বেশি ।

প্যাড vs ট্যাম্পন (Tampon)

প্যাড এখন অনেক বেশি পাতলা, উইংস থাকায় লিকেজের টেনশন কমেছে । পাতলা প্যাড, ওপরের ড্রাই কভার তুলনায় আরামদায়ক । কিন্তু প্যাড নিয়ে অনেকক্ষণ ঘোরাঘুরি করলে, ঘষা লেগে জ্বালা, ছড়ে যাওয়ার মতো সমস্যা থাকে । থেকে যায় প্যাড সরে যাওয়ার চিন্তাও।

সেই জায়গায় ট্যাম্পন কিন্তু তুলনায় বেশি সুবিধাজনক ।

কী এটা ?

এটা হল নরম, ছোট সিলিন্ড্রিকাল আকারের, সুতো বা রেয়ন দিয়ে তৈরি । এর নীচে একটা ছোট্ট সুতো থাকে । থাকে অ্যাপ্লিকেটর । সেই অ্যাপ্লিকেটরের সাহায্যে এটা সহজেই ভ্যাজাইনায় ঢুকিয়ে দেওয়া যায় । ছোট্ট দড়ি বা সুতোর মতো অংশটা বাইরে বেরিয়ে থাকে । এটা ট্যাম্পন ব্যবহারের পর টেনে বের করার জন্য । ৬-৭ ঘণ্টা পর ট্যাম্পন বদলালে ভাল ।

এর প্রধান সুবিধা হল, পিরিয়ডসের দিনে আলাদা করে প্যাড নেওয়ার ঝঞ্ঝাট থাকে না । বিশেষত গরমের দিনে প্যাডের ঘষা সহ্য করতে হয় না । লিকেজের কোনও চিন্তা নেই । বিয়েবাড়ি হোক বা অনুষ্ঠান, দাগ লাগার ভয় নেই । আর এর সবচেয়ে বড় সুবিধা. সুইমিং পুলে নামুন বা সমুদ্রে, স্কুবা ডাইভিং, স্নরকেলিং বেড়াতে গিয়ে এনজয়মেন্টে নো ভয় ।

অসুবিধে ভ্যাজাইনার মধ্যে থাকা ট্যাম্পন কখনও একটু অস্বস্তিকর হয়ে ওঠে । বেশিক্ষণ থাকার পর জ্বালাভাব দেখা দিতে পারে । তবে সকলের এই সমস্যা হবে তেমন নয় । তাই প্যাডের বদলে ট্যাম্পন ট্রাই করাই যেতে পারে । এতে ক্ষতির কোনও সম্ভাবনা নেই ।

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Most Popular

To Top