Lifestyle - লাইফস্টাইল

অপরিষ্কার চাদর (Unclean sheet), বালিশ ও পর্দা, ডেকে আনতে পারে ভয়ানক অসুখ !

বাড়ির ঘর, আসবাব, বাথরুম আমরা রোজ ঝাঁটা দিয়ে ও মোছামুছি করে পরিষ্কার রাখি।  রোজের পরনের জামাকাপড় সাবানজল দিয়ে নিয়মিত পরিষ্কার করি সকলেই ।  তবে এমন কিছু কিছু জিনিস আছে, যেগুলি পরিষ্কারে সেভাবে আমরা নজর দিই না।  সেগুলি পরিষ্কার করলেও, তা করি বেশি সময়ের ব্যবধানে । ঠিক এমনটিই আমরা করি  অপরিষ্কার চাদর (unclean sheet) পর্দা, সোফার কুশন কভার, বালিশের কভার ও বাথরুমের ম্যাটের ক্ষেত্রে । অপরিষ্কার চাদর (Unclean sheet), বালিশ ও পর্দা, ডেকে আনতে পারে ভয়ানক সব অসুখ  !

পর্দা : আমরা মনে করি যে পর্দা তেমন সহজে ময়লা হয় না । অনেকে এমন রঙ ও প্যাটার্নের পর্দা ব্যবহার করেন যা ময়লা হলেও সহজে  বোঝা যায় না । কিন্তু চোখে দেখা না গেলেও এগুলোতে জমে থাকে প্রচুর পরিমাণে ধুলো এবং জীবাণু (virus, bacteria)। দামি পর্দা Dry cleaner  দিয়ে পরিষ্কার করুন । তবে সুতি বা ভারী কাপড়ের পর্দা বাড়িতেই হাতে বা ওয়াশিং মেশিনে ধুয়ে নিতে পারেন ।

বালিশের কভার :  বহুদিন ধরে বালিশের কভার পরিষ্কার করা না হলে মুখের লালা বা ঘাম বালিশে জমে মোল্ড দেখা দিতে পারে । এই মোল্ড বা ফাঙ্গাস ক্রমেই বালিশ থেকে নেমে বিছানায় আস্তানা গড়ে তুলবে । অপরিষ্কার কভারে  ঘুমোলে শরীরে অ্যালার্জির সমস্যা বাড়তে পারে । কারণ বালিশের খোলে লেগে থাকা ভাইরাস, ব্যাকটিরিয়া ও ফাঙ্গাস

বিছানার চাদর :  এক সপ্তাহের মধ্যে আমাদের বিছানার চাদরের আশেপাশে ব্যাকটিরিয়া ও প্রচুর ময়লা জমা হয় ।  তাই  প্রতি সপ্তাহে পাল্টে ফেলুন বিছানার চাদর ।  বাড়িতে বাচ্চা থাকলে ৩ দিন অন্তর । বিছানার চাদরগুলো আলাদা ধোয়ার জন্য রাখুন, ভুলেও প্রতিদিনের জামাকাপড়ের সঙ্গে ধোবেন না ।

কুশন: প্রতিদিন আমরা সোফার কুশনে শরীর এলিয়ে দিয়ে  টিভি দেখি অথবা গল্পগুজব করে থাকি ।  বাইরের লোকজন এসে ড্রয়িংরুমে রাখা সোফাতেই বসেন । তাতেই জমে থাকে অনেক ময়লা ও জীবাণু । শুধু কভারটা পরিষ্কার করাই যথেষ্ট নয়, ভেতরের বালিশটাও পরিষ্কার করা জরুরি । এটা হালকা সাবানে ঠাণ্ডা জলে ধুয়ে নিতে পারেন হাতে বা ওয়াশিং মেশিনে ।

বাথরুম ম্যাট :  বাথরুম এমনিতেই জীবাণুর আখড়া, তার আর্দ্র ম্যাটটা আরও বেশি ময়লা হয়ে যায় দিনকে দিন । প্রতি দুই সপ্তাহে একবার, অন্তত মাসে একবার তা ধুয়ে ফেলা দরকার । ধোওয়ার পর বারান্দার রেলিং অথবা কাপড় শুকানোর দড়িতে রোদে রেখে ভালোভাবে শুকিয়ে নিন ।

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Most Popular

To Top